মঙ্গলবার, ২৬-মে ২০২০, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন
  • অন্যান্য
  • »
  • কক্সবাজারে সেভ আওয়ার সি’র ‘ন্যাশনাল বীচ ক্লিনাপ’ অনুষ্ঠিত

কক্সবাজারে সেভ আওয়ার সি’র ‘ন্যাশনাল বীচ ক্লিনাপ’ অনুষ্ঠিত

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ১০:৩১ পূর্বাহ্ন

শীর্ষনিউজ, কক্সবাজার: সমুদ্র পরিবেশ নিয়ে কাজ করা সংগঠন সেভ আওয়ার সি এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে ‘ন্যাশনাল বীচ ক্লিনাপ-২০২০’ কর্মসূচি গত মঙ্গলবার কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ও সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আ আ স ম আরিফিন সিদ্দিকী। 
কর্মসূচির শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেভ আওয়ার সি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক। সহযোগিতায় ছিল মেরিন জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক। 
 প্রধান অতিথি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আ আ স ম আরিফিন সিদ্দিকী বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শীতায় বিশাল সমুদ্র বিজয় আমাদের অনেক বড় বিজয়। এ সমুদ্র বিজয়কে অর্থবহ করতে হবে। এটাকে অর্থবহ করতে সমুদ্র বিষয়ক গবেষকদের ভূমিকা রাখতে হবে। আমাদের সমুদ্র সচেতনতা বাড়ানো প্রয়োজন, আর এ জন্যই সেভ আওয়ার সি নামের এ সংগঠন এই সচেতনতা মূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। 
তিনি বলেন, ফ্লোরিডার মিয়ামি বিচ বিশ্বের অন্যতম একটি বিচ। সেখানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পর্যটকরা যাচ্ছে, সিনেমার শুটিং চলছে। হাজার হাজার পর্যটকরা সেখানে যাচ্ছে। অথচ সেই বিচ আমাদের কক্সবাজারের বিচের তুলনায় কিছুই নয়। শুধুমাত্র আমাদের সমুদ্র ব্যবস্থাপনা ও পরিকল্পনাগত সমস্যার কারণে এটা হচ্ছে। মানতে কষ্ট হয় আজ যেসব স্থাপনা কক্সবাজার বিচের কাছাকাছি চলে এসেছে, তা যে কতটা অস্বস্তিকর অবস্থা তৈরি করেছে। স্থাপনা থাকতে পারে সেটার একটা লিমিট থাকা উচিত। মুজিববর্ষের অঙ্গীকার নিয়ে কক্সবাজারকে সুন্দর ব্যবস্থাপনার মধ্যে নিয়ে এসে সমুদ্রকে দেশের কল্যাণে, জনকল্যাণে কাজে লাগাতে হবে।

ইকবাল সোবহান চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, যে সংগঠনটি আজকেরএই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে, আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে একটা সচেতনতামূলক পরিস্থিতি তৈরি করা এবং যেসব কর্তৃপক্ষ আছে তাদের যেসব গাফিলতি আছে তা মানুষের সামনে তুলে ধরা। আমি সাংবাদিকবন্ধুদের বলবো প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার উন্নয়নের তিন লক্ষ কোটি টাকার বাজেট পাস করেছেন। এয়ারপোর্ট থেকে শুরু করে সবধরণের স্থাপনার উন্নয়নে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সারা বাংলাদেশের সঙ্গে কক্সবাজারের যদি উন্নয়ন করা না যায় তাহলে সারা বাংলাদেশের উন্নয়ন পূর্ণ হবেনা। এখানে যেসব সমুদ্র এবং পাহাড়ি সম্পদ রয়েছে এটা আমাদের পরিকল্পনার অভাবে যদি কাজে লাগাতে না পারে তাহলে এটি আমাদের বড় ব্যর্থতা।
সমুদ্র অর্থনীতি গবেষক ডক্টর দিলরুবা চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, পৃথিবীতে ব্লু ইকোনমি থেকে অর্থনীতি আসছে পাঁচ থেকে ছয় ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। আমরা যদি ব্লু ইকোনমি কে আরো বেশি এগিয়ে নিতে চাই পারি তাহলে এটা বেড়ে ১০ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার পর্যন্ত হতে পারে। পর্যটন থেকে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি আয় করছে আমেরিকা। আমাদের দেশেও ট্যুরিজম এর সঙ্গে অনেক সেক্টর সম্পৃক্ত হয়েছে। ট্যুরিজম দিয়ে আমাদের জিডিপি তে কন্ট্রিবিউশন আরও বাড়াতে পারি। শুধুমাত্র গার্মেন্ট সেক্টরের উপর আমাদের আর নির্ভর করতে হবে না, আপনারা জেনেছেন ইতোমধ্যে গার্মেন্ট সেক্টর জিটিভিতে অংশগ্রহণে তৃতীয় স্থানে নেমে এসেছে। ফলে গার্মেন্ট শিল্পের প্রতি বেশি ঝুঁকে না গিয়ে সমুদ্র সম্পদের ওপর গুরুত্ব দিলে জিডিপিতে এর অংশগ্রহণ অনেক গুণে বেড়ে যাবে। 
অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার জেলা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর রশিদ, সেভ আওয়ার সি’র পৃষ্ঠপোষক আতিকুর রহমান, পর্যটন বিশেষজ্ঞ ও ট্যুরিজম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের হেড অব নিউজ মামুন আব্দুল্লাহ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি তারেক সাঈদ, স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও বাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান মজুমদার, বন্যপ্রাণী ক্রাইম কন্ট্রোল ইউনিটের পরিচালক এএসএম জহির আকন্দ, বাংলাদেশ ট্যুরিজম এক্সপ্লোর অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম সাগর প্রমুখ। 
উপস্থিত ছিলেন সেভ আওয়ার সি’র সদস্য শাহদাত হোসেন স্বপন, হোসাইন ইমাম সোহেল, তানভীর আহমদ, হাসান মাহমুদ, আক্তারুজ্জামান ও জাহাঙ্গীর আলম আনসারী ও উইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশ’র এমডি সাংবাদিক কেফায়েত শাকিল।
 অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সেভ আওয়ার সি’র সিনিয়র সদস্য মাহমুদ সোহেল। 
শীর্ষনিউজ/জে